google.com, pub-8571279523475240, DIRECT, f08c47fec0942fa0 Freelancers IT | Learn More About Freelancing and Outsourcing

sfd

কোন বিষয়ে ফ্রিল্যান্সিং শিখবো

আমরা যারা ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে আসতে চাই। আমাদের মনে অনেক প্রশ্ন থেকে যায়, যে আমি কোন কাজ শিখব। কোন কাজ শিখলে বেশি আয় করতে পারব। কোন কাজটি আামার জন্য শিখা সহজ হবে। কোন কাজ শিখলে আর ভবিষ্যৎ এ আর কাজ শিখতে হবে না ইত্যাদি নানা ধরনের প্রশ্ন মনে আসে। আশা করি এই পোষ্টটি মনোযোগ সহকারে পড়লে এই সকল প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন।

কোন বিষয়ে ফ্রিল্যান্সিং শিখবো

কোন বিষয়ে ফ্রিল্যান্সিং শিখলে ভালো হবে

আমি প্রথমেই বলব, আপনি কোন কাজটা শিখবেন। কোন কাজটা আপনার জন্য ভালো হবে। আপনার যে কাজটা খুব ভালো লাগে সেই কাজটাই আপনি শিখবেন। যে কাজটা করতে আপনাকে অনেক ভালো লাগে এবং কাজে যখন বসবেন, ঐ কাজটি যখন আপনি করছেন তখন দেখবেন, যে কখন সময় চলে যাচ্ছে আপনি বুঝতেই পারছেন না। মানে কাজ এর সাথে এতটাই প্রেম বা এতটাই ভালোবাসা ভালোলাগা কাজ করে,যে আপনার কাজ করতে করতে কখন যে সময় চলে যাচ্ছে আপনি টেরই পাচ্ছেন না। তো এ রকম আপনার কাজ এর সাথে প্রেম ভালোবাসা থাকতে হবে। কাজের প্রতি আপনার প্রেম, ভালোবাসা না থাকলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে ভালো কিছু করতে পারবেন না। আসলে জোর করে কোন কিছু হয় না। 

ফ্রিল্যান্সিং ভালোবাসা বা সাধনার জিনিস। আপনি এটাকে যদি ভালোবেসে গ্রহন না করতে পারেন। তাহলে আপনি কখনই পারবেন না। যে কাজটা করতে আপনার খুবই ভালো লাগে। আপনি কাজে বসলেন কখন সময় চলে যাচ্ছে টেরই পাচ্ছেন না। মানে আপনার কোনো হুসই নাই। খুব ভালো লাগে কাজটা করতে আপনাকে। এটা দিলে মোটামুটি সারাদিন এটা নিয়ে পরে থাকতে পারবেন। অনেক ভিতর থেকে ভালোলাগা কাজ করে সেই কাজটা আপনি বেছে নেন ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য। 

এখন এইটা বললে অনেকে আবার প্রশ্ন করে, যে ভাই আমিতো নতুন। আমি কিভাবে বুঝব যে আমার কোনটা ভালো লাগে। আমার কম্পিউটার এর সাথে মোটামুটি কোনো সম্পর্কই নাই। আমি কম্পিউটার সেই রকম ব্যবহার করি না। কিন্তু আমি ফ্রিল্যান্সিং পেশাকে বেছে নিতে চাচ্ছি। সুতরাং আমি এখন জানতে চাচ্ছি আমার কোনটা ভালো লাগবে। আপনি তো বলছেন ভালোলাগা টাকে বেছে নিতে। তো আমি বুঝব কেমনে যে এইটা আমার ভালো লাগতেছে। এইখানে তো অনেক সেক্টর আছে। 

প্রশ্নের উত্তর এ আমি যেটা বলব, আপনি প্রথমত ইউটিউব এ যাবেন যাওয়ার পরে আপনি তিনটা স্কিল বাছাই করবেন । আপনি যখন ফ্রিল্যান্সিং এর দিকে তাকাবেন অবশ্যই দেখবেন আপনার কোনো একটা ভালো লাগবে। আপনার যে কাজটি ভালো লাগবে। যেমনঃ গ্রাফিক্স ডিজািইন বা ভিডিও ইডিটিং যেকোনো কাজ হতে পারে । প্রথমত আপনি কাজ এর চাকচিক্যটা দেখবেন। 

এখন চাকচিক্য বুঝাতে লাগলে ঘন্টার পর ঘন্টা লেগে যাবে। কাজের উপরিভাগ দেখে যেটা ভালো লাগে সেটা নিয়ে আগান। আগানোর পরে আপনি তিনটা স্কিল বাছাই করেন। ধরলাম আপনি
  • গ্রাফিক্স ডিজািইন।
  • ওয়েব ডিজাইন।
  • ডাটা এন্ট্রি।
এই তিনটা স্কিল বাছাই করলেন। তো দেখতে যেটা ভালো লাগে সেটা চেষ্টা করেন। তো প্রথমত গ্রাফিক্স ডিজািইন এর যেকোনো একটা সেক্টর যেমন, ব্যানার ডিজাইন, লোগো ডিজাইন অথবা ফ্লাওয়ার ডিজাইন। যেটা আপনার ভালো লাগে সেটা আপনি ভিডিও দেখে দেখে খুব সুন্দর করে চেষ্টা করেন।  কাজ করেন এবং দুই তিন দিন অনুশীলন করেন। 

তারপরে আপনি পরের দিন রাইটিং মানে ডাটা এনট্রির যেকোনো একটা কাজ করবেন। তারপরে আপনি ওয়েব ডিজাইন এর ওয়ার্ডপ্রেস এর কাজ করেন। আমি বলবো ওয়েব ডিজাইন এর ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে শুরু করতে। কারণ এটা সহজ এবং মোটামুটি পৃথিবীর ৮৫% ওয়েবসাইট আসলে ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে তৈরী।

এই তিনটা কাজ মোটামুটি ১৫ দিন অনুশীলন করার পরে আপনি আয়নার সামনে গিয়ে দাড়ান। আয়নার সামনে গিয়ে দাড়ানোর পরে আপনি এখানে মনে মনে পার্থক্য করেন। আপনি নিজেকে জিজ্ঞেস করেন কোন কাজটি করতে আপনার ভালো লেগেছে। এখন আপনি নিজে নিজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন । কোন কাজটি আপনার ভালো লেগেছে । যেটা ভালো লেগেছিল সেটি নিয়ে আপনাকে সামনে যাইতে হবে ।

এইটার চাইতে সহজে আমার কাছে সূত্র বা টেকনিক নাই যেইটার মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন অসলেই কোন কাজটা আপনার ভালো লাগে। আশা করি এইটাই আসল সূত্র কোন কাজটা আপনার ভালো লাগে সেটা জানার ।

কোন কাজটি শিখলে ভবিষ্যৎ এ আর কাজ শিখতে হবে না 

এইটার উত্তরে আমি আপনাকে বলব যে দেখেন প্রথমত পৃথিবীটা কত বড়। আর আপনি একটা মানুষ কয়জনকে সেবা দিতে পারবেন। এখানে বর্তমানে অনেক সেক্টর আছে। ফ্রিল্যান্সিং এর ওয়েবসাইট গুলোতে যখন ঘুরবেন, তখন যে কয়টি সেক্টর দেখতে পাবেন । আপনি যেকোনো একটা সেক্টর এ কাজ করবেন।

তো কোনো সেক্টর এই কাজ এর অভাব নেই। একটা জিনিস মাথায় রাখবেন। আপনি ক্ষুদ্র একটা মানুষ পৃথিবীর মানুষের চাহিদার কাছে। আপনি একা কখনো পৃথিবীর মানুষের সর্বনিম্ন চাহিদাটুকু পূরণ করার অ্যাবিলিটি রাখেন না। কারণ আপনার একা একটা মানুষের দ্বারা পৃথিবীর ক্ষুদ্রত্তম চাহিদাটুকু মেটানো সম্ভব না।

তো আমি বলব কোনো সেক্টরেই কাজ এর অভাব নেই। কম আর বেশি। অবশ্যই যখন আপনি কাজ শিখবেন তখন দেখবেন আপনি কাজ শিখতে শিখতে অনেক বড় কাজ শিখে ফেলছেন। সময় যতো যাবে আপনি নতুন নতুন কাজ শিখবেন। এইখানেই আসলে সব কিছু। আপনি কখনই পৃথিবীর ক্ষুদ্রত্তম চাহিদাটুকু মেটাতে পারবেন না।

সুতরাং এই প্রশ্নটা একটা অহেতুক প্রশ্ন, যে কোন কাজ শিখলে আর ভবিষৎ এ কাজ শিখতে হবে না। অবশ্যই আমাদের স্কিল বাড়াতে হবে। অনেক কাজের স্পামিং বাংলাদেশে হয়। এই সকল ছোট ছোট কাজ যেগুলো চোখে দেখাই দিলে যে কেউ করতে পারবে। এগুলো কে আপনি কাজ বলে মনে করে যদি সেগুলো শিখেন। তাহলে হবে না, আপনাকে অবশ্যই স্কিল বাড়াইতে হবে। আমি কোন কাজ যেভাবে দেখাই দিলাম আপনি ঠিক সেভাবেই করলেন এইটা একটা জিনিস আর স্কিল বাড়ানো আরেক জিনিস।

আপনি যেকেনো একটা স্কিল বাড়াইলে সেইটাতে আপনার কাজের অভাব হবে না। যদি আপনি ভালোভাবে ‍স্কিল বাড়ান।

আরও জানুন-
আশা করি আপনি সকল প্রশ্নের উত্তর পেয়েছেন এবং আপনাদের ভলো লেগেছে। ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে আরও এরকম ভালো ভালো পোস্ট পেতে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। ধন্যবাদ।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url

as