google.com, pub-8571279523475240, DIRECT, f08c47fec0942fa0 Freelancers IT | Learn More About Freelancing and Outsourcing

sfd

ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য ডেক্সটপ কিনব নাকি ল্যাপটপ কিনব

আমরা অনলাইন প্রফেশনে একেক জন একেক  ধরনের কাজ করে থাকি। কেউ ওয়েব ডিজাইন করি। কেউ গ্রাফিক্স ডিজাইন করি। কেউ ভিডিও এডিটিং করি। আবার কেউ এসইও, ব্লগিং ডাটা এন্ট্রি ইত্যাদি বিভিন্ন  ধরনের কাজ করে থাকি। এখন একেক জনের জন্য একেকটা পারফেক্ট । 

ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য ডেক্সটপ কিনব নাকি ল্যাপটপ কিনব

ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য ডেক্সটপ  নাকি ল্যাপটপ কিনা ভালো হবে?

আপনি যদি ব্লগার হয়ে থাকেন। আপনি ব্লগিং করেন , আর্টিকেল রাইটিং করেন। এখন আপনাকে বিভিন্ন জায়গায় যেতে হয়। আপনি হয়তবা ঘরের বাইরেও কাজ করতে চান। আপনার নেটেরও দরকার হয় না অনেক সময়  আপনি অফলাইনে কাজ গুলো করে নিতে পারেন। আপনি আর্টিকেল লিখেন এবং নেট কানেক্ট করে সাবমিট করে দিতে পারেন ক্লাইন্টকে। আপনার জন্য কিন্তু ল্যাপটপ চমৎকার। আপনি ল্যাপটপ দিয়ে খুব সহজেই আপনার কাজগুলো করতে পারছেন । আর এক্ষেত্রে আপনার জন্য ডেক্সটপ নেওয়া টাই বোকামি হবে। কারণ ডেক্সটপ নিলে আপনাকে এক জায়গায়  বসে কাজ করতে হবে। কোথাও মুভ করতে পারবেন না  আপনাকে বাসায় সবসময় কাজ করতে হবে একটা টেবিলে। তো এক্ষেত্রে আপনি যদি ব্লগার হয়ে থাকেন, আপনি যদি আর্টিকেল রাইটার হয়ে থাকেন। আপনার জন্য ল্যাপটপ পারফেক্ট। 

আপনি যদি ভিডিও এডিটিং এর কাজ করেন, তাহলে দেখা যায় আপনাকে ভালো মানের গ্রাফিক্স কার্ড নিতে হবে। আপনার এক্সর্টা র‌্যামের দরকার হবে। আপনার কম্পিউটার এর এস এস ডি কার্ড দরকার হবে। যার সবগুলো হয়তবা আপনার ল্যাপটপে নাও থাকতে পারে। ল্যাপটপে আপনি যদি এই কনফিগারেশন এড করতে চান তাহলে অনেক বেশি টাকা খরচ হতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনি  ডেক্সটপ এ চলে যেতে পারেন। কারণ আপনি মোটামুটি ৪০-৫০ হাজার টাকার মধ্যেই গ্রাফিক্স কার্ড, এসএসডিসহ আপনি একটি পিসি বানাতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনি যদি ভিডিও এডিটিং করেন। তাহলে  ডেক্সটপ নেওয়াটাই আপনার জন্য ভালো হবে। 

অনুরূপ ভাবে আপনি যদি  ওয়েব ডিজািইন এর কাজ করেন এক্ষেত্রে ব্যাপারটা একটু কনফিউজিং আমি আসলে ল্যাপটপ নিবো নাকি ডেক্সটপ নিবো? ওয়েব ডিজািইন এর জন্য আপনি ল্যাপটপেও কাজ করতে পারেন ডেক্সটপেও কাজ করতে পারেন। ব্যাক্তিগত ভাবে আমি ডেক্সটপে কাজ করি কিন্তু দেখা যায় যে ল্যাপটপেও কাজ করা হয়। ল্যাপটপের সাথে এক্সটারনাল মনিটর লাগিয়ে মানে ল্যাপটপকে শুধুমাত্র মেশিন হিসেবে ব্যাবহার  করে এক্সর্টা মনিটর দিয়ে খুব সহজেই আপনার ডেক্সটপ পিসি বানাইয়া ফেলতে পারেন ল্যাপটপ দিয়েই। সেক্ষেত্রে ওয়েব ডেভলপমেন্ট এর জন্য  ল্যাপটপও ব্যাবহার করতে পারেন। 

তবে আমি সবসময় রিকমেন্ট করি  ওয়েব ডেভলপমেন্ট এর জন্য অবশ্যই ডেক্সটপ ব্যাবহার করবেন। কারণ  ডেক্সটপ এ ভালো সুবিধা পাবেন । কম খরচে একটা ভালো মানের কম্পিউটার বানাতে পারবেন। যেমন,আমি যদি ওয়েব ডেভলপমেন্ট এর কাজ করি আমাকে অনেকগুলো ট্যাব ওপেন করতে হয় ব্রাউজারে। দেখা যায় ক্রোমে আমি কাজ করছি তখন হয়তবা ৩০-৪০ টা টাব ওপেন হইতে পারে । ল্যাপটপে যদি আপনার ভালো মানের র‌্যাম এসএসডি  না থাকে তাহলে ল্যাপটপটি হ্যাঙ করতে পারে । আসলে হ্যাঙ সমস্যা থেকে বাঁচার জন্যই আমি ডেক্সটপ নেওয়ার পরামর্শ দিব । আপনি যদি ওয়েব ডেভলপার হয়ে থাকেন ডেক্সটপ নিতে পারেন।

আবার প্রশ্ন হতে পারে আমি গ্রাফিক্স ডিজাইনার। অনেকেই গ্রফিক্স ডিজাইনিং করেন। গ্রাফিক্স ডিজাইনিং এর ক্ষেত্রে ল্যাপটপ নিবেন না ডেক্সটপ নিবেন? আপনি চোখ বন্ধ করে ডেক্সটপ নিতে পারেন। এখন প্রশ্ন হতে পারে যে আপনি কোন যুক্তি তে ডেক্সটপ নিতে বলছেন। ল্যাপটপ  যখন আমি  ব্যাবহার করব, ল্যাপটপে অনেক বেশি সফটওয়্যার যদি আমি ব্যাবহার করি অনেক ভারি ভারি সফটওয়্যার যদি আমি ব্যাবহার করি। যেমন এডবি যে সফটওয়্যারগুলো রয়েছে এডবি ফটোশপ,,ইলাসটেটর,তারপরে প্রিমিয়ার প্রো ইত্যাদি। এগুলো সফটওয়্যার যখন আমি ইনস্টল করব তখন আমার ল্যাপটপটা তুলনামূলক ভাবে স্লো হয়ে যাবে। কিন্তু ডেক্সটপে এই হাঙ সমস্যাই পরতে হবে না যদি আপনার কম্পিউটারে একটি এসএসডি থাকে ভালো র‌্যাম থাকে। এখন অনেকে আবার  প্রশ্ন করতে পারেন ভাইয়া আমার কম্পিউটার এর স্পিড  বাড়ানোর জন্য আমি কি করতে পারি বা আমার ল্যাপটপ রয়েছে স্পিড কিভাবে বাড়াতে পারি। 

এক্ষেত্রে আপনি যদি কম্পিউটারে বা আপনার ল্যাপটপে একটা এসএসডি কার্ড এড করেন। আর যদি সম্ভব হয় র‌্যাম বাড়াতে পারেন । র‌্যামটাকে আমি অপশনাল হিসেবে ধরব যদি বাড়াতে পারেন তাহলে খুবই ভালো। না বাড়াতে পারলে শুধুমাত্র একটা এসএসডি এড করে দেন দেখবেন আপনার কম্পিউটার এর অনেক স্পিড বেড়ে গেছে। আর ল্যাপটপ কিনেন বা ডেক্সটপ কিনেন যেটাই কিনেন না কেনো আপনার কম্পিউটারে  অবশ্যই একটা এসএসডি থাকতে হবে। এসএসডিতে আপনি কম্পিউটারের যে অপারেটিং সিষ্টেম লিনেক্স বা উইনডোজ ব্যাবহার করেন। যেটিই ব্যাবহার করে থকেন আপনার অপারেটিং সিষ্টেমটি  এসএসডিতে ইনস্টল করবেন আর যদি এক্সর্টা আপনি হার্ডডিক্স ব্যাবহার করেন সেটিতে আপনার  ফাইলগুলো থাকবে। তাহলে দেখবেন যে আপনার কম্পিউটার এর পারফরমেন্স বেশি পাচ্ছেন। কিভাবে আপনার কম্পিউটার এর স্পিড বাড়াবেন জিানতে নিচের ভিডিওটি দেখুন।

সুতরাং পরিশেষে কি বলতে পারি যে আপনারা  হয়তবা বলতে পারেন ভাইয়া, তাহলে আমি ডেক্সটপ নিব না ল্যাপটপ নিব। পরিশেষে আসলে কিছু বলার নাই। আপনার প্রফেশন ভেদে আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে ল্যাপটপ নিবেন নাকি ডেক্সটপ নিবেন। তবে কথা ওই একটাই যেটিই নেন অবশ্যই এসএসডি রাখতে হবে র‌্যামটাকে একটু বাড়াতে হবে। তাহলে আপনি মাল্টিটাসকিং কাজগুলো  যদি করে থাকেন। অনেকগুলো ট্যাব যদি ওপেন করতে হয়। অনেকগুলো প্রোগ্রাম যদি এক সাথে চালাতে হয়। তাহলে খুব ভালো পারফরমেন্স পাবেন। 

আর যদি আপনি ভিডিও এডিটিং বা  অন্যান্য ভারি কাজ করে থাকেন তাহলে সিপিইউ টাকে একটু আপগ্রেড করতে হবে। সেক্ষেত্রে কোর আই সেভেন মানের একটি প্রসেসর আপনি ব্যাবহার করবেন। সেক্ষেত্রে আপনি আলাদা একটি গ্রাফিক্স কার্ড ব্যাবহার করতে পারেন ২জিবি বা ৪জিবি। তাহলে আপনার কম্পিউটার এর রেনডার টাইমটা কমে আসবে। এজন্য এডিটিং পিসিতে গ্রাফিক্স কার্ড অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এখন অনেকের মনে প্রশ্ন থাকতে পারে যে আমি যে এসএসডি ব্যাবহার করব সেটা কত জিবি নিবো। এটা আপনার বাজেট এর উপর নির্ভর করব। আপনার বাজেট যদি কম খাকে তাহল ১২০ জিবি নিতে পারেন। আপনার বাজেট যদি একটু বেশি থাকে তাহলে ২৫০ জিবির কাছাকাছি এসএসডি কার্ড নিতে পারেন। 

আশা করি বুঝতে পেরেছেন কম্পিউটার কিনার ক্ষেত্রে কোন বিষয়গুলো গুরূত্ব দেওয়া দরকার।এবং আপনার প্রফেশন অনুযায়ী কোনটা আপনার জন্য পারফেক্ট।

আরও জানুনঃ

আশা করি এই পোস্ট টি আপনাদের ভালো লেগেছে। এরকম আরও ভালো পোস্ট পেতে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। ধন্যবাদ।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url

as