ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য কেমন কম্পিউটার লাগবে

বেশ কিছুদিন ধরে অনেকেই আমাকে প্রশ্ন করছেন যে, ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য কেমন কম্পিউটার লাগবে? ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার কথা মাথায় আসলেই এই প্রশ্নটা আসে। অনেকেই মনে করেন ফ্রিল্যান্সিং করতে অনেক ভালো মানের কম্পিউটার লাগে, অনেক দামি কম্পিউটার লাগে। এই ধারণাটা ভুল। কারণ শুরুতেই তো আপনি হাই কনফিগারেশন টাইপের কোন কাজ করবেন না বা করতে পারবেন না। তাই শুরুতে অনেক ভালো মানের কম্পিউটার লাগে না।

ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য কেমন কম্পিউটার লাগবে

ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য যেমন কম্পিউটার দরকার

অনেকের বাড়িতে পুরোনো কম্পিউটার আছে। এখন হয়ত ভাবছেন, এইটা দিয়ে কি ফ্রিল্যান্সিং করা যাবে? নাকি আমাকে ভালো কম্পিউটার কিনতে হবে। দেখুন ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার আগে আপনি নিজেও জানেন না যে, আপনি কি কাজ করবেন। আপনার কাজ সিলেক্ট করার জন্য প্রথমে ফ্রিল্যান্সিং জগতের কাজ গুলো সম্পর্কে রিসার্চ করতে হবে। তারপর বুঝতে হবে আপনি কোন কাজ করবেন। যেইটা করতে আপনার অনেক সময় লাগবে। তারও আগে আপনাকে বেসিক কম্পিউটার স্কিল শিখতে হবে। আর বেসিক  কম্পিউটার স্কিল শিখতেও সময় লাগবে। এরপর আপনি ধীরে ধীরে কিছু সহজ কাজ শিখবেন। যেগুলো যে কোন মানের কম্পিউটার দিয়েই করা যায়। এই সহজ কাজগুলো দিয়ে কিছু ইনকাম করতে পারেন কিনা আগে নিশ্চিত হতে হবে আপনাকে। আপনি পুরো প্রসেসটা বুঝতে পারছেন কিনা।

বেসিক কম্পিউটার স্কিল শিখতে নিচের ভিডিওগুলো দেখুনঃ

এতক্ষন পর্যন্ত যা কিছু বললাম এই সব কিছুই আপনি যে কোন মানের কম্পিউটার দিয়েই করতে পারবেন। আপনার বাড়িতে যত পুরোনো কম্পিউটারই থাকুক না কেন, যেমনঃ ডুয়েল কোর, পেনটিয়াম কোর, যদি ইন্টারনেট ব্রাউজ করা যায় সেই কম্পিউটারে, তাহলে সেইটা দিয়েই শুরু করতে পারেন। আর যদি বাড়িতে না থাকে সেক্ষেত্রে ভিন্ন কথা। আপনি চাইলে ভালো মানের কম্পিউটার কিনতে পারেন। যদি আপনার বাজেট ভালো থাকে। আর যদি ভালো বাজেট না থাকে সেক্ষেত্রে আপনার বাজেটের মধ্যে যে কোন মানের কম্পিউটার কিনতে পারেন। এমনকি পুরোনো কম্পিউটারও কিনতে পারেন। পরবর্তীতে নিজের কাজের ধরন অনুসারে পুরোনো কম্পিউটার বিক্রি করে যেমন কম্পিউটার প্রয়োজন তেমন কম্পিউটার নিতে পারেন। এতে হালকা লস মনে হলেও ঝুঁকি অনেক কম থাকে।

ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য শুরুতেই দামি কম্পিউটার নেওয়ার ক্ষতিকর দিক

ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য শুরুতেই দামি কম্পিউটার হয়ত কিনলেন। কিন্তু আপনি সফল হবেন এর কোন গ্যারান্টি নেই বা আপনি যে স্কিল শিখতে পারবেন তারও কোন গ্যারান্টি নেই। যে আপনাকে শিখাবে সেও কোন গ্যারান্টি দিতে পারবেনা। কারণ ফ্রিল্যান্সিং জগতটাই ইন্টারন্যাশলাল লেভেলে হয়। এইখানে কম্পিটিশন হয়  ইন্টারন্যাশলালদের সাথে। তাই যদি আপনি সফল হতে না পারেন তাহলে আপনার অনেক বড় লস হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এমন অনেকেই আছেন যারা পরিবারের আর্থিক অবস্থা ভালো না হওয়ার পরও শুরুতেই অনেক দামি কম্পিউটার কিনে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার স্বপ্ন দেখেছেন। কিন্তু দিন শেষে তাদের স্বপ্ন ভেঙ্গে শেষ হয়ে গেছে। তারা যে লসের সম্মুখীন হয়েছে সেখান থেকে আর বের হতে পারেন নি। তাই নিশ্চিন্তে যে কোন মানের কম্পিউটার দিয়ে ফিল্যান্সিং শুরু করাই বুদ্ধিমানের কাজ।

এখন অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, যদি শুরুটা গ্রাফিক্স ডিজাইন দিয়ে হয়। আর বাড়িতে একটা পুরোনো কম্পিউটার থাকে তাহলে কিভাবে কাজ শুরু করব? এই কম্পিউটারে তো সব সফ্টওয়্যার ইন্সটল হয় না। এই সমস্যারও সমাধান আছে। প্রত্যেকটা সফ্টওয়্যার এর New Version এবং Old Version রয়েছে। যেমন আপনার কম্পিউটারে যদি  Microsoft Office 2010/2016/2018 ইন্সটল না হয় তাহলে Microsoft Office 2007 ইন্সটল করুন। আবার যদি Photoshop cc 2014/15/17 ইন্সটল না হয় তাহলে Photoshop  ‍cs6/7 ইন্সটল করুন। তাও যদি না হয তা হলে Online Version ব্যবহার করুন।

Microsoft Office Word এর Online Version  হচ্ছে Google Docs, Microsoft Office Excel এর Online Version হচ্ছে Google Sheet । একই ভাবে Photoshop এর Online Version https://www.photopea.com/ 

আসল কথা হচ্ছে প্রবল ইচ্ছা শক্তি থাকলে যে কোন কম্পিউটার দিয়েই শুরু করা যায়। নিজেকে মুল্যায়ন করা যায়। একবার যদি ইনকাম করা যায় তাহলে নিজের কাজ অনুসারে কম্পিউটার নিতে কারো কোন সমস্যা হবে না বলে মনে করি। 

আরও জানুন

আশা করি এই পোস্ট টি আপনাদের ভালো লেগেছে। এরকম আরো ভালো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করুন। ধন্যবাদ।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url